রাজশাহী,,

রাজশাহী নগরীর অধ্যক্ষ রিপনের অপকর্ম ফাঁস: ৫ সদস্যের তদন্ত কমটি গঠন

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজশাহী নগরীর কাপাসিয়া এলাকার অবস্থিত মহানগর টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউট’ কারিগরি কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একই প্রতিষ্ঠানের একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গত ৪ ফেব্রুয়ারী এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা চালান অধ্যক্ষ। এ ঘটনাকে ৫ ফেব্রুয়ারী মতিহার থানাধীন কাপাসিয়া বাজার সংলগ্ন ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে ওই এলাকার স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। এরপর থেকেই একে একে বেরিয়ে আসছে ওই কলেজের অধ্যক্ষ জহুরুল আলম রিপনের (৪০) নানান অপকর্ম। ওই প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তার বরাবর এরই মধ্যে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিন জন ছাত্রী ও এক শিক্ষিকা। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের মোটা অর্থ আত্মসাতেরও অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গত রোববার কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতির ও পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা। ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা সামনে আসায় গত ৪ ফেব্রুয়ারী থেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন অধ্যক্ষ। তবে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারী থেকে তিনি ছুটিতে আছেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা। তার অনুপস্থিতিতে অধ্যক্ষের দায়িত্ব দেয়া হয়নি কাউকেই। এসএসসি পরীক্ষকেন্দ্র হওয়ায় কেবল কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সহকারী অধ্যাপক মকসেদ আলীকে। ঘটনার শিকার ছাত্রীদের অভিযোগ থেকে জানা গেছে, গত ৪ ফেব্রুয়ারী নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ক্লাস থেকে ডেকে নেন অধ্যক্ষ। পরীক্ষায় বেশী নম্বর দেয়ার প্রলোভন দিয়ে অফিস কক্ষে দীর্ঘ সময় কাটান। এসময় পাহারায় ছিলেন অফিস পিওনরা। ছুটির পর ওই ছাত্রী বাড়ি ফিরে ঘটনাটি স্বজনদের জানান। এরপর স্বজনরা কলেজে এসে অধ্যক্ষের উপর চড়াও হন। অবশ্য ওই ওই ছাত্রীর এক চাচা তার ভাতিজির ঘটনা বলতে অস্বিকার করেন।এদিকে অধ্যক্ষ রিপনের অপকর্মের ঘটনা এলাকায় প্রচার হতে থাকায় , ওই প্রতিষ্ঠান থেকে অভিভাবকরা মেয়েদের সরিয়ে নিবেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে । এনিয়ে গত ১২ ফেব্রুয়ারী সোমবার দুপুর সোয় ১টার দিকে ছাত্রীদের যৌন হয়রানী ,অর্থ আত্বৎসাত ও অধ্যক্ষ জহুরুল আলম রিপনের অপসারন, শাস্তি ও বিচারের দাবিতে পূর্বের স্থানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন, মহানগর টেকনিক্যাল এন্ড বি.এম ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীরা। এসব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে প্রতিষ্ঠানটির কয়েকজন শিক্ষক-কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, অধ্যক্ষ স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যাক্তি। কলেজে তার একচ্ছত্র আধিপত্য । শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে সবসময় অশালিন আচারণ করলেও চাকুরি হারানোর ভয়ে কেউ তাকে সাহস করে কিছু বলতে পারেন না। ফলে বাধ্য হয়ে এসব অপকর্মের প্রতিবান জানাননি কেউই। শিক্ষকদের ভাষ্য, ২০০১ সালে গড়েওঠা প্রতিষ্ঠানটির আর্থিক বিষয় একাই দেখভাল করতেন অধ্যক্ষ। ভকেশনাল শাখা ও এইচএসসি বিএম ইন্সটিটিউট শাখা মিলে শিক্ষার্থী মিলে প্রায় ৫০০ জন। বরাবর ভালো ফলাফল করায় শিক্ষার্থীদের আগ্রহ ছিলো প্রচুর। আর এ সুযোগেই কেবল শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রতি বছর আদায় হয় ১০ লক্ষাধিক টাকা। এছাড়া শিক্ষক নিয়োগে উন্নয়ন ফির নামে আদায় করা হয় অন্তত দুই কোটি টাকা। এ টাকা গুলিও রয়েছে রিপনের কব্জায়। প্রতিষ্ঠানের সম্পদ নিয়ে ব্যক্তিগত সম্পদের পাহাড় গড়েছেন অধ্যক্ষ। গড়েছেন কয়েকটি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও একটি প্রসাধনী কারখানা। ব্যক্তিগত মোবাইল সংযোগ না পাওয়ায় অভিযোগের ব্যাপারে অধ্যক্ষ জহুরুল আলম রিপনের মন্তব্য পাওয়া নি। তবে গত ৪ ফেব্রুয়ারী ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুই দিন পর রিপন সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেন ,রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ তাকে দমাতে এ অপকৌশল নিয়েছে। এ অভিযোগ সাজানো বলে দাবি করলেও অজ্ঞাত কারনে তিনি মানহানির মামলা দেবো বলেও তিনি কোন মামলা করেননি। ছাত্রী ধর্ষণ ও ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, কেবল সর্বশেষ ঘটনাটির খবর তারা পেয়েছেন। এলাকাবাসী অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার এ অভিযোগ তুলেছেন। শাস্তি দাবিতে তারা মানববন্ধনও করেছেন। কিন্তু কেউ এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ওসি। অন্যদিকে, লিখিত অভিযোগ পাবার সত্যতা নিশ্চিত করে প্রতিষ্ঠানটির সভাপতিত্বের দায়িত্বে থাকা পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবির বলেন, তারা অভিযোগ তদন্তে শিগগিরই কমিটি করবেন। অভিযোগের সত্যতা পেলে ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক ও সম্পাদক: ড. আবু ইউসুফ সেলিম
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: নুরে ইসলাম মিলন
বার্তা সম্পাদক : ফাহমিদা আফরীণ
প্রধান প্রতিবেদক: এস.এম.আব্দুল কাজিম

মিয়াপাড়া কেজি স্কুলের উত্তরে, রাজশাহী।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোবাইল ০১৭১২-৭৮৭৯৮৫
বার্তা কক্ষ:- অফিস ০৭২১-৭৭২৬০৬
মোবাইল:- ০১৭১৯-৯৩২৮৯৯
Email : upochar.news@gmail.com
www.dailyupochar.com
https://www.facebook.com/pg/DailyUpochar

Design & Developed BY