,


রোববার ঢাকায় চালু হচ্ছে ‘উবার ইটস’

উপচার ডেস্ক: আমেরিকার সানফ্রান্সিসকোর অ্যাপস ভিত্তিক যাত্রীসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান উবার ঢাকায় ফুড ডেলিভারি সার্ভিস ‘উবার ইটস’ চালু করতে যাচ্ছে। আগামী রোববার সকালে ঢাকার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ফুড ডেলিভারির এ সেবা চালু হবে।

বাংলাদেশে এই সেবা চালুর আগে ‘উবার ইটস’ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছেন ই-কমার্স ও স্টার্টআপস খাতে ১২ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন মিশা আলি। অনুষ্ঠানে মিশা আলির সাথে উপস্থিত থাকবেন দক্ষিণ এশিয়া ও ভারতের উবার ইটসের প্রধান ভাভিক রাথোর।

উবার ইটস্‌ একটি ফুড ডেলিভারি অ্যাপ যা উবার রাইড অ্যাপের মতোই গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী তাদের আশেপাশের রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার পৌঁছে দেবে। ঢাকার সবচেয়ে বিখ্যাত ও ভোক্তাদের পছন্দের কিছু রেস্টুরেন্ট নিয়ে সার্ভিসটি শুরু হতে যাচ্ছে। গত মাসে ১৪ মার্চ বাংলাদেশে এ সেবা চালুর বিষয়ে ঘোষণা দিয়েছিল উবার।

ঢাকায় এ সার্ভিস চালুর বিষয়ে ভাভিক রাথোর বলেন, ‘ঢাকায় উবার ইটস্‌ -এর সার্ভিস চালু করতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। উবার রাইডের ব্যবসায়িক সাফল্যের পর উবার ইটস্‌ এর জন্য রেস্টুরেন্ট মালিক, ডেলিভারি পার্টনার কমিউনিটি ও গ্রাহকদের কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য সাড়া পাওয়ার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। এই শহরের খাদ্যাভ্যাসের একটি অন্যতম অংশ হিসেবে নিজেদের স্থাপন করাই আমাদের লক্ষ্য।’

২০১৪ সালে লস অ্যাঞ্জেলেসে যাত্রা শুরু করে উবার ইটস। পরবর্তীতে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে টরন্টোতে একটি স্বতন্ত্র অ্যাপ হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। ২০১৭ সালের আগস্টে সাউথ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে যাত্রী সেবার পাশাপাশি খাদ্য সার্ভিস চালু করে এশিয়ায় যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে বিশ্বের ৩৬টি দেশের ৩৫০টিরও বেশি শহরে উবার ইটস ব্যবহৃত হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসেই বাংলাদেশে রাইডশেয়ারিং প্রতিষ্ঠান উবারের ফুড ডেলিভারি সার্ভিস ‘উবার ইটস’ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছেন মিশা আলি। তিনি ই-কমার্স ও স্টার্ট-আপস খাতে ১২ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন মিশা আলি বাংলাদেশে উবার ইটসের উদ্বোধন এবং এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্ব দেবেন।

মিশা এর আগে বিক্রয় ডটকম, রেনাটা লিমিটেড, হিউলেট প্যাকার্ড এবং ওগিলভির মতো স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক কোম্পানিতে নেতৃস্থানীয় পদে কর্মরত ছিলেন। মিশা আলি বাংলাদেশের শেফ বিশেষ করে গৃহিণীদের জন্য প্ল্যাটফর্ম কুকআপসের প্রতিষ্ঠাতা।

কুকআপস প্লাটফর্মটি গৃহিণীদের ঘরে বসে আয় করার মধ্যে দিয়ে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বি হওয়ার সুযোগ করে দিয়ে থাকে। মিশা আলি বলেন, “আমি সবসময়ই প্রযুক্তির মাধ্যমে ভোক্তাদের হাতের নাগালে সুস্বাদু খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী। অচিরেই ফুড ডেলিভারি বাংলাদেশে একটি বড় ব্যবসাখাত হবে।”

সূত্র: যুগান্তর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archive Calendar

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০