,


সর্বশেষ সংবাদ

বাগমারায় জমি দখল করে পুকুর খনন

বাগমারা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাগমারায় উপজেলা মাড়িয়া ইউনিয়নের তেলিপুকুর গাঙ্গোপাড়া বিলে অবৈধ ভাবে জমি দখল করে পুকুর খনন করা হচ্ছে বলে ওই গ্রামের একাধিক কৃষক বন্ধের জন্য স্থানীয় প্রশাসন ও সাংবাদিকদের অবহিত করে তা বন্ধের ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন।

এদিকে অবৈধ ভাবে পুকুর খনন চলছেই প্রশাসনের দারপ্রান্তে জমি রক্ষার্থে আবেদন করে কোন সুরহা মিঠছে না বলেঅভিযোগ তুলেছেন স্থানীয়রা। তাদের অভিযোগ স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালীরা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে পুকুর খনন অব্যাহত রাখলেও স্থানীয় প্রশাসন মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে রহস্যজনক নিরব ভুমিকা পালন করছেন। কৃষি জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে পুকুর বা দিঘি খনন করায় আবাদি জমির পরিমান কমে যাচ্ছে এবং পানি প্রবাহিত বাধা হয়ে চাষাবাদ হুমকীর মুখে পড়ছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় জালাল উদ্দিন নামে এক আইনজীবি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর বা দিঘি খনন না করার আবেদন জানিয়ে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করে। আবেদনে আদালত বন্ধের নিয়মিত ভ্রাম্যমান পরিচালনার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দিলেও আদালতের রায় উপেক্ষা করে অব্যাহত অবৈধ পুকুর খনন চলছে বলে অভিযোগকারীরা দাবি করেন।

তারা আরো জানান, পুকুর বা দিঘি খনন বন্ধে স্থানীয় প্রশাসন লোক দেখানো নামে কোন কোন সময় অভিযান চালালেও পরপর তা আবারো অর্থের বিনিময়ে ছাড় দিয়ে পারকরছেন। এতে করে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

অভিযোগকারীরা জানান, গত ৪ ডিসেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর জোর করে জমি দখল করে পুকুর খননের অভিযোগ করে বন্ধের লিখিত আবেদন করেন মাড়িয়া ইউনিয়নের আব্দুস সামাদ, নজরুল ইসলাম, আলমসহ ৫ শতাধিক কৃষক। তাদের দাবি উপজেলার দক্ষিণ সাজুড়িয়া ও ভবানীগঞ্জের আব্দুল গাফ্ফার তেলিপুকুর গাঙ্গেপাড়া বিলে জোর পূবৃক জমি দখল করে পুকুর খননের ব্যবস্থা নিচ্ছে। এতে করে বিলের পানি নামার রাস্তা বন্ধ হয়ে পড়বে। পানিব্ধতার সৃষ্টির ফলে ওই বিলের হাজার হাজার বিঘা ফসলি জমির আবাদ হুমকির মুখে পড়বে। পানি নিষ্কাশনের কোন বিকল্প পথ না থাকায় বর্ষাকালে এলাকার পানি যাবার একটি মাত্র পথ। এই আবেদনের পর শুক্রবার সকালে ওই প্রভাবশালীরা জোর পূর্বক বিলের মধ্যে পুকুর খনন কাজ করছে।

কৃষকরা অভিযোগ করে জানান, কিছু প্রভাবশালী সার্থন্বেষী মহল স্থানীয় কয়েকজনের জমি লীজ নিয়ে পুকুর খনন শুরু করে। পরে অন্যদের সন্মতি না নিয়ে জমি দখল করে পুকুর খনন সম্পূর্ণ করছে। এভাবে কৃষি জমিতে একের পর এক পুকুর খননেণ বিলের অন্যান্য জমিগুলো হুমকির মুখে পড়ছে । অন্যদিকে আবাদি জমির পরিমান কমে যাচ্ছে। গাঙ্গোপাড়া গ্রামের জমির মালিক নাজমুল হক জানান, আমার পৈত্রিক সম্পত্তি তেমন নেই্ বিলের মধ্যে সামান্য জমি ওই জমিতে জোর করে পুকুর খনন করতে উপজেলার দক্ষিণ সাজুড়িয়া ও ভবানীগঞ্জের আব্দুল গাফ্ফার চেস্টা করছে। আমি নিজে বন্ধের জন্য বাদি হয়ে দরখাস্ত করেছি। কিন্তু আজ জোর করে যথাস্থানে পুকুর করতে শুরু কেেছ। আমি এই পুকুর খননে নিঃশ্ব হয়ে পড়ববে বলে তিনি এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।

এলকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় একটি প্রভাবশালী মহল খাল, দাঁড়ি ও বিলে ফ্রি স্টাইলে যত্রতত্র পুকুর খনন করে মাছ চাষের নামে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন অব্যাহত রেখেছেন। এতে বর্ষা মওসুমে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে পড়ছে। পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার শত শত বিঘা ফসলি জমি পড়ে থাকছে। উপজেলার বাসুপাড়া, ঝিকরা, গোয়ালকান্দি, মাড়িয়া, গণিপুর, বড়বিহানালী ও দ্বীপপুরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে অবৈধ পুকুর খনন করছে। মন্ত্রণালয় নির্দেশ রয়েছে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করা যাবে না।

প্রভাবশালীরা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে পুকুর খনন অব্যাহত রাখলেও স্থানীয় প্রশাসন মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে রহস্যজনক নিরব ভুমিকা পালন করছে বলে স্থানীবাসী দাবি করেছেন। ব্যবসার নামে পানি প্রবাহের নালায় পুকুর করায় ব্রীজ, কালভাট ও স্লুইজ গেট অকেজ হয়ে পড়ছে। পানি বদ্ধতায় বর্ষায় ফসলি জমির আবাদ নষ্ট হলেও তাদের দুরাবস্থায় কেউ এগিযে আসছে না বলে কৃষকরা দাবি করেন।

প্রভাবশালীদের হাত থেকে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ও ফসলি জমিতে নিয়ম বর্হিভূত অপরিকল্পিত পুকুর খনন বন্ধের জন্য দফায় দফায় ভুক্তভোগী কৃষকরা স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে ব্যবস্থা গ্রহণের লিখিত আবেদন করেছেন। এতে কোন সুফল মিলছে না বলে কৃষকরা দাবি করেছেন। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাকিউল ইসলাম বলেন, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অবৈধ পুকুর খনননের অভিযোগ পেয়েছি। পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archive Calendar

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১