,


তানোরে মূর্তিমান আতঙ্কের আরেক নাম কমান্ডার সেকেন্দার আলী

সোহানুল হক পারভেজ,তানোর : রাজশাহীর তানোরে আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়ের কোম্পানী কমান্ডার সেকেন্দার আলীর দৌরাত্মে আনসার-ভিডিপি সাধারণ সদস্য ও সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। আনসার-ভিডিপির সাধারণ সদস্যদের কাছে মূর্তিমান আতঙ্কের আরেক নাম কমান্ডার সেকেন্দার আলী। কমান্ডার সেকেন্দার আলীর সঙ্গে গাঁজা, ইয়াবা ও চোলাইমদসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে অপরাধীদের রয়েছে গভীর সখ্যতা বিভিন্ন মাদক সম্পট থেকে নিয়মিত আদায় করেন মাসিক মাসোয়ারা। তিনি অর্থের বিনিময়ে অনেক নিরিহ সহজসরল ও সাদাসিধে মানুষকে মাদক মামলায় জড়িয়ে দেয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে অর্থ আদায় করেন আর না দিলে অযথা হয়রানি করে থাকেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক জন ভুক্তভোগী জানান, কমান্ডার সেকেন্দার আলী উপজেলার অমৃতপুর, নেজামপুর, বিল্লিহাট, কোয়েলহাট ও ইলামদহীসহ বিভিন্ন মাদক স্পটে গিয়ে নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের নামে মাসিক মাসোয়ারা আদায় করেন। আবার মাসোয়ার বড় অংশ যাচ্ছে কর্মকর্তাদের পকেটে যে কারণে তারা বিষয়টি দেখেও না দেখার অভিনয়ে এড়িয়ে চলেছে। রাজশাহী জেলা এবং উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তার ঘনিষ্ঠ আত্নীয় পরিচয় দিয়ে তিনি এসব অনিয়ম-দূর্নীতি করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা আনসার ও ভিডিপির ১১৫ সদস্যর জন্য একজন কোম্পানী কমান্ডার রয়েছে এবং কোম্পানী কমান্ডার হতে নূন্যতম এসএসসি পাশ হতে হবে। কিন্তু সেকেন্দার আলী এসএসসি পাশ না হলেও জেলা ও উপজেলা কর্মকর্তাকে বড় অঙ্কের আর্থিক সুবিধা দিয়ে কোম্পানী কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করছেস। তিনি কোম্পানী কমান্ডার হলেও নিয়মিত উপজেলা কার্যালয়ে কর্মকর্তার ভূমিকায় রয়েছেন। উপজেলা কর্মকর্তার কাছে সদস্যরা কোনো কাজে গেলে তিনি কৌশলে সেকেন্দার আলীর কাছে পাঠাচ্ছে। তিনি সেখানে তাদের কাছে থেকে আর্থিক সুবিধা আদায় করছেন। এছাড়াও ইতিপূর্বে কোম্পানী কমান্ডার সেকেন্দার উপজেলা কর্মকর্তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত ও মাদক মামলায় সাময়িক ভাবে বরখাস্ত হয়েছিলেন এখানো তার নামে মাদক মামলা চলমান রয়েছে। আছে নারী নির্যাতনের অভিযোগ ও মাদক ব্যবসার অভিযোগ। আবার নির্বাচন ও দূর্গাপুজায় ডিউটির জন্য আনসার-ভিডিপি সদস্য নির্বাচনে মাথা পিছু ৫০০ খেকে ৭০০ টাকা আদায় করেন ও টাকার বিনিময়ে প্রশিক্ষণ নাই এমন সদস্যদের ডিউটির জন্য নির্বাচিত করেন।

তানোরে একাদ্বশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬২২ জন আনসার ও ভিডিপি সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছিল। এসব সদস্যদের কাছে থেকে মাথা পিছু ৫০০ টাকা থেকে ৭০০ টাকা করে আদায় করা হয়েছে বলেও সাধারণ সদস্যদের মধ্যে আলোচনা রয়েছে। উপজেলার সাধারণ আনসার ও ভিডিপি সদস্যরা কোম্পানী কমান্ডার সেকেন্দার আলীর অপসারণ ও নীতিমালা অনুযায়ী কোম্পানী কমান্ডার নিয়োগের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে তানোর উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সেলিনা আকতার বলেন, কোম্পানী কমান্ডারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগে পেলে তদন্ত সাপেক্ষে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এব্যাপারে জানতে চাইলে কোম্পানী কমান্ডার সেকেন্দার আলী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কেউ অবৈধ সুবিধা না পেয়ে সাংবাদিকগণের কাছে তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archive Calendar

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১